নোয়াখালীতে করোনায় উপসর্গে মৃত ব্যক্তির জানাযা ও কবর দিলেন ছাত্রলীগ-যুবলীগ

প্রকাশিত: মে ৬, ২০২০

আবু রায়হান সরকার(বিশেষ প্রতিনিধি): নোয়াখালী বেগমগঞ্জ উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার পর জানাযা ও দাফন করার ভয়ে নিজ স্বজনরা ও মসজিদের ইমাম পালিয়ে গেলেও দায়িত্ব কাঁধে নেয় বেগমগঞ্জ উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নে ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতা-কর্মীরা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মানবিক কাজটির জন্য প্রশংসায় ভাসছে তারা। কবর খোড়া, জানাজা পড়ানো, মাটি দেওয়া ছবিগুলো ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। জেলা, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারাও ছবিগুলো নিজেদের ওয়ালে পোষ্ট করে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক টিমকে ধন্যবাদ জানিয়েছে। এমন মানবিকতা ছড়িয়ে পড়ুক সর্বত্র এমনটাই প্রত্যাশা সমাজের সর্বস্তরের মানুষদের।

জানা গেছে, গত রোববার রাতে করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান হাজীপুর ইউনিয়নের বাসিন্ধা ও চৌমুহনী পূর্ব বাজারের সুগন্ধা কমিউনিটি সেন্টারের ম্যানেজার স্বপন। এর পর থেকেই তার স্বজনরা সব বাড়ি ঘর থেকে পালিয়ে যায়। স্বপন একমাত্র সন্তান হলেও পিতা পর্যন্ত লাশটির জানাযা ও দাফনের সময় আসেনি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে লাশ এলাকায় নিয়ে গেলেও কেউ কবর খোঁড়া, জানাযা পড়ানো বা কবর দেওয়ার ব্যাপারে এগিয়ে আসে নি।পরে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই লাশটি দাফনের কাজ করে হাজীপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক রাকিব ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবলু  এবং উপজেলা থেকে গঠিত স্বেচ্ছাসেবক দল। জানাযা পড়ানোর ভয়ে আগেই স্থানীয় মসজিদের ইমাম পালিয়ে যাওয়ায় লাশের জানাযা পড়ান হাজীপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবলু।সার্বিকভাবে তাদের সহযোগিতা করেন বেগমগঞ্জ মডেল থানার এএসআই শাকিদুল।

এ বিষয়ে হাজীপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবলু ও হাজীপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক রাকিব জানান, আসলে কোন প্রশংসা পাওয়ার জন্য আমরা কাজটি করিনি। মানবিক দিক বিবেচনা থেকেই কাজটি করেছি।ভবিষ্যতেও এ ধরনের মানবিক কাজে আমাদের সহযোগীতা অব্যাহত থাকবে।

বেগমগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদ হাসান শুভ বলেন, তাদের এমন মানবিক কাজ দেখে ও এই দলের একজন সদস্য হিসেবে সত্যি আমরা গর্বিত। ধন্যবাদ জানায় আমার সহযোদ্ধাদের।

এ ব্যাপারে নোয়াখালী বেগমগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মামুনুর রশীদ কিরন বলেন,বেগমগঞ্জ উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া এক যুবকের লাশ দাফন ও কবরস্থ করার বিষয়টি বেশ আলোচনায় এসেছে,সামাজিকযোগাযোগ মাধ্যমেও বেশ সাড়া ফেলেছে।।করোনা পরিস্থিতিতে জীবনবাজি রেখে মৃত ব্যক্তির জন্য কবর খোড়া, জানাজা পড়ানো, মাটি দেওয়াসহ ছাত্রলীগ-যুবলীগের ভুয়ংশী প্রশংসাও করেন তিনি। কতিপয় কিছু লোকজন এখন যে কোন মৃত্যুকেই করোনা রোগী বলে প্রচার করে মানুষজনকে আতঙ্কগ্রস্ত করছে।সরকার গুজব রটনাকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছে। আমাদের আরো সচেতন হতে হবে। সুস্থ্ থাকতে হলে অবশ্যই আপনারা কেউ বিনা প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হবেন না। সবাইকে সরকারের বিধি-নিষেধ মেনে চলারও আহবান জানান তিনি।

উল্লেখ্য,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সমগ্র বাংলাদেশে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা কৃষকদের জমিতে ধান কেটে দেন।এছাড়াও বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও নোয়াখালীর তারুণ্যের অহংকার জিহান আল রশীদ (রাফির) উৎসাহে নোয়াখালীতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অসহায় কৃষকদের জমিতে ধান কেটে,মাড়াই করে ঘরে তুলে দেন। যা বাংলাদেশে টপ অব দ্যা নিউজে পরিণত হয়।