সোনাইমুড়ি করোনা ভাইরাস রোধে ব্র্যাকের উদ্যোগে সচেতনতা মূলক হাত ধোয়া ও লিফলেট বিতরন

প্রকাশিত: মার্চ ২৬, ২০২০

মোঃ আলাউদ্দিন লিংকন:

নোয়াখালী সোনাইমুড়ী উপজেলার এরিয়া অফিসের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস রোধে সচেতনতা মূলক হাত ধোয়া, লিফলেট বিতরণ ও মাইকিং।বিশ্ব ব্যাপী করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় হোম কোয়ারেন্টাইন নিজ গৃহে সার্বক্ষণিক অবস্হান সবচেয়ে ফলপ্রসূ উপায় হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। চীন সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ হোম কোয়ারেন্টাইন কে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় অন্যতম প্রধান উপায় হিসাবে ব্যবহার করে সুফল পাচ্ছে।দেশে প্রত্যাগত প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে বাংলাদেশে ও এই ভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমনের উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে।

সোনাইমুড়ী উপজেলায় বিদেশ ফেরত প্রবাসী বাংলাদেশিদেরকে সরকারি নির্দেশ মোতাবেক সেচ্ছায় কমপক্ষে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য এবং যথাযথ কতৃপক্ষকে অবহিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো অন্যথায় সরকারি নির্দেশনা অমান্য করার দায়ে সর্বোচ্ছ ২ বছর কারাদণ্ড অথবা অাইনানুগ ব্যবস্হা গ্রহনের সুযোগ রয়েছে। সোনাইমুড়ি ব্র্যাক অফিসের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস রোধে সচেতনতা মূলক হাত ধোয়া ও মাইকিংয়ের ব্যবস্হা করেন।

ব্যাক অফিসের সামনের গেইটে রয়েছে পানির ট্যাপ,হ্যান্ড ওয়াশও হাত ধোযার পর হাত মুছে ফেলার জন্য টিস্যু ওব্র্যাক কর্ম কর্তারা ভিবিন্ন এলাকা ঘুরে লিফলেট বিতরন করেন। করোনা ভাইরাসের সচেতননতা সম্পর্কে সোনাইমুড়ী উপজেলার ব্র্যাক কর্মকর্তা মোঃআমিনুল ইসলাম বলেন প্রতি ঘন্টায় ঘন্টায় ও বাহির হতে বাসায় আসলে হাত মুখ সাবান দিয়ে ভাল করে ধুতে হবে,মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

জন সম্মুখে যাওয়া যাবে না। নিজে সুস্থ থাকবো অন্যকে সুস্থ রাখতে চেষ্টা করবো। এছাড়াও তিনি কর্মীদের সকাল বিকাল সাস্থ্য সংক্রান্ত খোঁজ খবর রাখেন। লিফলেট বিতরন ও ব্র্যাক অফিসের সামনের গেইটে হাত ধোয়ার অনুষ্ঠানে উপস্হিত ছিলেন ব্র্যাক কর্মকর্তা প্রগতির এলাকা ব্যবস্থাপক মোঃ আমিনুল ইসলাম, দাবির এলাকা ব্যবস্থাপক মোঃওয়াহিদুর রহমান, দাবির শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ আবুল খায়ের,সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন প্রগতির সিও বৃন্দ এনামুল,সুমন,ফাতেমা,শাহিন,সাহিদা ও মোবারক। এছাড়া ও সহযোগিতায় ছিলেন ব্র্যাক শাখা হিসাব কর্মকর্তারা ও ব্র্যাকের কর্মী বৃন্দ।